মঙ্গলবার , জানুয়ারি ২২, ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

আদর্শ শিক্ষক সুনাগরিক গড়ার কারিগর

মোঃ সোহেল রানা

পৃথিবীতে কোন শিশুই মায়ের পেট থেকে শিক্ষা গ্রহন করে আসে না, জন্ম হওয়ার পর থেকে বেড়ে ওঠার সাথে সাথে পরিবার থেকে শুরু করে সকল স্থান থেকে শিক্ষা গ্রহন করতে শুরু করে। সর্বপ্রথম একটা শিশু শিক্ষা গ্রহন করার মূল উৎস হলো তার পিতা মাতা। কিন্তু আমাদের সমাজে পিতা মাতা থেকে যতই শিক্ষা গ্রহন করুক, আর্দশ ও সু-শিক্ষায় শিক্ষিত হবার জন্য একটা শিশুর বিদ্যালয় থেকে শিক্ষা নেওয়া অপরিহার্য। এমনকি আমাদের সমাজে বেশিভাগ অভিভাবক অশিক্ষিত হওয়ায় তারা বিদ্যালয়কে প্রথম শিক্ষা কেন্দ্র মনে করে। শিক্ষা কেন্দ্র যেমনি হোক না কেন, একটা শিশুর সুশিক্ষা বা আর্দশ নাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠার জন্য দরকার জ্ঞানী, গুণী ও আর্দশবান শিক্ষক। আজকের শিশুই হলো আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। আজকের এই শিশুই হবে আগামী দিনের দেশ পরিচালক বা একজন শিক্ষক। শিক্ষক হলো মানুষ গড়ার কারিগর, যদি একটা শিক্ষার্থী শিক্ষকের কাছ থেকে সুশিক্ষা না পায় তাহলে শিক্ষার্থী কখনো সুনাগরিক হয়ে গড়ে উঠবে না। তাই সুশিক্ষা বা আর্দশ নাগরিক হয়ে গড়ে উঠতে হলে শিক্ষক ও শিক্ষার্থী একে অপরকে সম্পর্ক হতে হবে বন্ধুত্বময়। এক শ্রেণীতে যেমন ভালো শিক্ষার্থী থাকে তেমনি খারাপ শিক্ষার্থীও থাকে। যদি কোন বিষয় শিক্ষার্থী না বুঝে, তাহলে রাগ না হয়ে শিক্ষকের উচিৎ হল বার বার বোঝানোর চেষ্টা করা। যদি কোন শিক্ষার্থী কোন ভুল বা বেয়াদবি করে থাকে, তাহলে তাকে বেত্রাঘাত বা কোন শাস্তি না দিয়ে ওই বিষয় থেকে বিরত থাকার জন্য ভালো ভাবে বুঝিয়ে দেওয়া উচিত। তাহলে আগামী দিনগুলোতে ওই শিক্ষার্থী ভুল করবে না। কিন্তু আমাদের সমাজে তার বিপরীত দিকে যদি কোন শিক্ষার্থী সামান্য ভুল করে বা কোন বিষয়ে না বোঝার জন্য প্রশ্ন করে তাহলে কিছু সংখ্যক শিক্ষক আছেন, এমন আচরন করেন যে ওই শিক্ষার্থী শিক্ষা ছেড়ে দেয় বা এর ফলে আগামী দিনে এই শিশুটি হয়ে ওঠে বখাটে বা সন্ত্রাসী। এমনকি শিক্ষকের এমন খারাপ আচরণেই শিক্ষার্থীরা প্রাণও হারায়। শিক্ষার জন্য শিক্ষক শাসন করবে কিন্তু এই শাসন যেন হয় শিক্ষার মতো আর্দশ। আর শিক্ষার্থীরও উচিত শিক্ষকদের পিতা মাতার মতো সন্মান করা। কখনো জীবনের জন্য শিক্ষক হবে ভাইয়ের মতো, আবার কখনো বন্ধুর মতো, কখনো নিজের স্থান থেকে উপদেশ দিবেন। শুধু সুশিক্ষিত হলেই শিক্ষক আর্দশ হন না, আর্দশ শিক্ষক হলো জ্ঞানী, গুণী, সৎ ও ন্যায় চরিত্রের অধিকারী। বাংলায় একটা প্রবাদ আছে, বৃক্ষ তোমার নাম কি ? ফলে পরিচয়। তাহলেই আগামী দিনে জাতির জন্য একজন শিক্ষার্থী গড়ে উঠবে আর্দশ ও সুনাগরিক হয়ে।