শুক্রবার , নভেম্বর ১৫, ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

হযরত শাহ্ কামাল (রহঃ) মাজারে দোয়া মাহফিলের মধ্যে দিয়ে মাসব্যাপী ওরস শুরু


লিয়াকত হোসাইন লায়ন, স্টাফ করসপনডেন্ট
জামালপুরের মেলান্দহে দুরমুঠ ইউনিয়নের দুরমুঠ বাজারে অবস্থিত হযরত শাহ্ কামাল (রহঃ) মাজার শরীফে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের মধ্যে দিয়ে শুরু হয়েছে মাসব্যাপী ওরস মোবারক।
বৈশাখের প্রথম দিন থেকেই এক মাসব্যাপী এই ওরস মোবারক পালিত হয়। যুগযুগ ধরে প্রতি বছর পহেলা বৈশাখ থেকে শেষ দিন আখেরী মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে এই উৎসবের সমাপ্তি ঘটে।
এক মাসব্যাপী ওরস শরিফে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আশেকান জাকেরান ভক্তবৃন্দদের আগমন ঘটে। ভক্তবৃন্দরা মনোবাসনা পূরন করতে বিভিন্ন মানত করে থাকেন। তারা শিরনী, ফিন্নি, পায়েস বিভিন্ন তবারক নিয়ে ফকির মিসকিন, পাগলদের মাঝে বিতরণ করে থাকেন। মাসব্যাপী এ ওরস শরিফে ভক্তবৃন্দদের পদচারণায় মুখরিত হয় এ অঞ্চল।
জানাযায়, হযরত শাহ্ কামাল (রহঃ) দুরমুঠে অবস্থান কালে তৎকালীন ভারতের রাজা মহেন্দ্র নারায়নের পূত্র ভগদেব কঠিন দুরারোগ্য ব্যাধিতে ভুগছিলেন। রাজা মহেন্দ্র নারায়ন তিনি পুত্রের বহু চিকিৎসার পর ব্যর্থ হয়ে প্রখ্যাত ওলীর কাছে স্মরনাপন্ন হন। হযরত শাহ্ কামাল (রহঃ) রাজপুত্র ভগদেব এর সুস্থ্যতার জন্য দোয়া করলে তাৎক্ষণিক তিনি সুস্থ্য হয়ে উঠেন।
তার এই অলৌকিক ক্ষমতা দেখে রাজা মহেন্দ্র নারায়ন তার প্রতি মুগ্ধ হয়ে সে সময় ইসলাম ধর্ম গ্রহন করেন। এমন কি তার জমিদারীর কিয়দাংশ এই প্রখ্যাত অলীর নামে লিখে দিয়ে জায়গীরদারী দান করেছিলেন।
কালের বিবর্তনে অনেক কিছু হারিয়ে গেলেও প্রবীণদের কাছে প্রখ্যাত এই আওলিয়ার বহু কেরামিত ও অলৌকিক ঘটনাবলী অতিতের সেই অজানা অনেক কথাও জানাযায়। ১৯০৮ সনে বৃটিশ আমলে এ অঞ্চলে ক্যাটিস্টাল সার্ভে (সিএস) ভূমি জরিপ হয়ে ছিল। সে সময়ের কাগজপত্র পর্যালোচনায় করে দেখা যায় তাঁর কোন পুত্র সন্তানের নাম না পেলেও তিন জন কন্যা সন্তানের নাম পাওয়া যায়।
তারা হলেন নছিমুনন্নেছা, কছিমুন্নেছা ও আক্তারুন্নেছা। পিতা হযরত শাহ কামাল (রহঃ) কাগজপত্রে পরিচয় মেলে। সেদিক থেকে বিশ্লেষন করে দেখা যায়, মেয়েদের বার্ধক্যের বয়সে যদি ভূমি জরিপ হয়েও থাকে, তাহলে তাদের বয়সের চেয়ে সর্ব্বোচ্চ একশ বৎসর পার্থক্য অর্থাৎ ১৮০০ শতাব্ধীর গোড়ার দিকে কিংবা মাঝামঝি কোন এক সময় এই অঞ্চলে হযরত শাহ্ সুফি সৈয়্যাদ শাহ কামাল (রহঃ) মহান সাধকের আগমন ঘটে ছিল বলে ধারনা করা যায়।
ওরস শরীফ উদযাপন উপলক্ষে দুরমুঠ ইউনিয়নের চেয়ারম্যার খালেকুজ্জামান জুবেরী এই প্রতিবেদককে বলেন, যুগযুগ থেকে চলে আসা পবিত্র এই ওরস মোবারকে দুরদুরান্ত থেকে অনেক ভক্তদের আগমন ঘটে। মাস ব্যাপী ওরস চলাকালে কোন ক্রমেই যেন মাজারের পবিত্রতা নষ্ট না হয় সেই দিকে লক্ষ রেখে ওরস উদযাপন কমিটি যথাযথ দায়িত্ব পালন করে থাকে। তিনি মাস ব্যাপী ওরস চলাকালে সকলের সহযোগীতা কামনা করেন।

error: Content is protected !!