সোমবার , নভেম্বর ১৮, ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিজয়ী হলে বকশীগঞ্জে ১শ কোটি টাকার উন্নয়ন হবে – মির্জা আজম

স্টাফ করসপন্ডেন্ট, বকশীগঞ্জ.

জামালপুর জেলার অহংকার বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম বলেছেন একমাত্র বোন শেখ রেহেনার মত বকশীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র প্রার্থী শাহীনা বেগমকেও স্নেহ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার কারনেই প্রধানমন্ত্রী নিজে বকশীগঞ্জ পৌরসভার উন্নয়নের দায়িত্ব নিয়ে আলহাজ্ব শাহীনা বেগমকে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছেন। তিনি বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যা বলেন তা করেন। নির্বাচনী ইশতেহারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যা বলেছিলেন তা বাস্তবায়ন হয়েছে। শিক্ষা,স্বাস্থ্য,বিদ্যুৎ,যোগাযোগ ও কৃষিসহ সকল ক্ষেত্রে ব্যপক উন্নয়ন হয়েছে। বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ। তাই আগামী নির্বাচনে জনগনের ভোটে আওয়ামীলীগ সরকার আবারো রাষ্টীয় ক্ষমতায় আসবে। শেখ হাসিনা আবারো প্রধানমন্ত্রী হবেন এতে কোন প্রকার সন্দেহ নেই। তাই উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে আগামী ২৮ ডিসেম্বর বকশীগঞ্জ পৌর নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনার অত্যান্ত আদরের প্রার্থী শাহীনা বেগমকে জয়যুক্ত করতে হবে। মঙ্গলবার বিকালে জানকিপুর এলাকায় বকশীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের কর্মী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন,আমি আপনাদের উদ্দেশ্যে কথা দিয়ে গেলাম,আপনারা যদি আওয়ামীলীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী শাহীনা বেগমকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেন তাহলে আগামী তিন মাসের মধ্যে ১শ কোটির উন্নয়ন হবে বকশীগঞ্জ পৌর শহরে। আগামী ৫ বছরে বকশীগঞ্জ পৌর শহর হবে সারা দেশের মধ্যে একটি উন্নত পৌরসভা। কাজ করার মত কোথাও কোন জায়গা খোজেঁ পাওয়া যাবেনা। আর তা না হলে উন্নয়ন কাজ ব্যাহত হবে। তিনি আরো বলেন,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার ছোট বোন শেখ রেহেনাকে যতটুকু ভালবাসেন ঠিক ততটুকুই ভালবাসেন মেয়র প্রার্থী শাহীনা বেগমকে। এটা আমাদের গবের্র বিষয়। অহংকারের বিষয়। কারন আমাদের এলাকার সন্তান শাহীনা বেগমকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার অন্তরে জায়গা দিয়েছেন। তাকে অত্যান্ত ভালবাসেন। শাহীনা মেয়র হলেই পৌরসভার শতভাগ উন্নয়ন নিশ্চিত হবে।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আমি এমনিই এখানে আসিনি,আমার এখানে আসার কথা নয়। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমি এখানে এসেছি। শাহীনা কোন বিষয় নয়। বিষয় হলো নৌকার। এই নৌকা বঙ্গবন্ধুর নৌকা,এই নৌকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নৌকা। তাই নৌকা মার্কার সাথে কেউ বেঈমানী করবেন না। তাহলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে বেঈমানী করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে বেঈমানী করা হবে। যারা বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার নৌকার সাথে বেঈমানী করবেন তারা নর্দমায় পরে যাবেন।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নুর মোহাম্মদ এর সভাপতিত্বে কর্মী সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাবেক তথ্যমন্ত্রী আলহাজ্ব আবুল কালাম আজাদ এমপি,জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এডভোকেট মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুক আহাম্মেদ চৌধুরী,কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আনার কলি পুতুল,জেলা আওয়ামীলীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয় সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ মেডিসিন,জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি মশিউর রহমান বাবু,কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামীলীগের সদস্য মেয়র প্রার্থী শাহীনা বেগম,উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ইসমাইল হোসেন বাবুল তালুকদার,সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম বিজয় প্রমূখ। এসময় জেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

error: Content is protected !!