সোমবার , সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

মাদারগঞ্জে চাকরির নামে টাকা আদায়ের পর কলেজ ছাত্রকে হত্যার চেষ্টা, ২ জন গ্রেফতার

জুলফিকার বাবলু, মাদারগঞ্জ
জামালপুরের মাদারগঞ্জে পুলিশে চাকরি দেয়ার নামে টাকা আদায়ের পর কলেজ ছাত্রকে নির্যাতন কওে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদেও মধ্যে জাকির নামে একজনের বাড়ি মাদারগঞ্জ থানার অদূরে জোনাইল গ্রামে এবং লুৎফর নামে অপর জনের বাড়ি পার্শবর্তী বাকুরচর গ্রামে।
মাদারগঞ্জ থানা পুলিশ ও চরপাকেরদহ গ্রামের সোনামিয়ার ছেলে কলেজ ছাত্র রেজাউল করিম জানান, গ্রেফতারকৃতরা রেজাউলকে ১৫ লাখ টাকার চুক্তিতে পুলিশে চাকরি দেওয়ার কথা বলে প্রথমে ১ লাখ ১০ হাজার টাকা নেয়। কিন্তু শারিরীক পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ার পর তারা রেজাউলকে গত রবিবার বিশেষ পদ্ধতিতে নিয়োগের কথা বলে ঢাকায় নিয়ে যায়। তারা রেজাউলকে সাভারের নবীনগর এলাকায় নিয়ে পুলিশ সুপারের বাসায় যাওয়ার কথা বলে অচেনা ব্যক্তিদের সাথে একটি মাইক্রো বাসে তুলে দেয়। অচেনা ব্যক্তিরা রেজাউলকে ঢাকার মিরপুরের ষাটফিট এলাকার একটি বাড়িতে নিয়ে বেদম মারপিট ও ব্লেড দিয়ে সারা শরীর ক্ষতবিক্ষত করে। এক পর্যায়ে দুর্বৃত্তরা রেজাউলকে তার অভিভাবকদের কাছে ফোন করতে বলে। এ সময় দুর্বৃত্তদেও শিখিয়ে দেওয়া কথামতো রেজাউল তার চাকরি হয়ে গেছে বলে অভিভাবকদের জানায় এবং বাকুরচর গ্রামের লস্কর মোল্ল্যার ছেলে লুৎফরের কাছে আরো ৬ লাখ টাকা দিতে বলে। এ অবস্থায় রেজাউলের অভিভাবকরা দাদন ও ধানের উপরসহ বিভিন্নভাবে ৬ লাখ টাকা জোগাড় করে লুৎফরকে দেয়। রেজাউল জানায়, টাকা দেওয়ার পরও অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা তাকে প্রাণে মেরে ফেলার প্রস্তুতি নিতে থাকলে কৌশলে সে বাড়ি ৪ তলার ছাদ থেকে পানির পাইপ ও জানালার গ্রিল বেয়ে নিচে নেমে আসে। এ সময় এলাকাবাসী থানায় খবর দিলে মিরপুর থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে। পরবর্তীতে রেজাউলের পিতা মাদারগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ রেজাউলকে বুধবার মিরপুর থান থেকে মাদারগঞ্জ থানা হেফাজতে নিয়ে আসে। বৃহস্পতিবার মাদারগঞ্জ থানা পুলিশ গ্রেফতারকৃতদের জামালপুর কোর্টে সোপর্দ করে। মাদারগঞ্জ থানার ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, আসামী লুৎফরের কাছ থেকে ৬ লাখ টাকার মধ্যে ৫ লাখ ৯৪ হাজার ৫০০ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত অন্যদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

error: Content is protected !!