রবিবার , সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জেসিসিআই’র শোকসভা ও দোয়া মাহফিল


এম আলমগীর, স্টাফ করসপনডেন্ট
১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে শোক সভা ও দোয়া মাহফিল করেছে দি জামালপুর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (জেসিসিআই)। শুক্রবার সন্ধ্যায় শহরে জেসিসিআইয়ের নিজস্ব ভবন মিলনায়তনে এ শোক সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেন জেসিসিআই কর্তৃপক্ষ।
এফবিসিসিআই’র সহ-সভাপতি ও জেসিসিআই’র সভাপতি মো. রেজাউল করিম রেজনু সিআইপি’র সভাপতিত্বে ও সিনিয়র সহ-সভাপতি ইকরামুল হক নবীনের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় মুখ্য আলোচকের বক্তব্য রাখেন জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ সুরুজ্জামান। আলোচকের বক্তব্য রাখেন সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক স্বরূপ কাহালি। অন্যান্যের মধ্যে দি জামালপুর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সহ-সভাপতি রঞ্জন কুমার সিংহ, সাবেক সভাপতি সৈয়দ মাহবুবুল হক গনী, পরিচালক খালেদুজ্জামান প্রদীপ, আনিছুর রহমান মানিক, শহর আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক তারিক মালেক সিজার প্রমুখ। এসময় উপস্থিত ছিলেন দি জামালপুর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সহ-সভাপতি হাজি নজরুল ইসলাম, পরিচালক শ্যামল চন্দ সাহা, রফিকুল ইসলাম লিটন, সিদ্দিকুর রহমান, লুৎফুল কবীর, সাবেক পরিচালক নুরুল হুদাসহ চেম্বারের সকল নেতৃবৃন্দ ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। সভাপতির বক্তব্যে রেজাউল করিম রেজনু সিআইপি বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন মুলত গণরাজের রাজা। ছিলেন গণনায়ক। তিনি শোসক, নিপিরক, নওয়াব, জমিদার কিংবা তথা কথিত অভিজাত শ্রেনীর হয়ে খলনায়কের খেলা খেলেননি তার রাজনৈতিক জীবনে। তিনি অভিজাত শ্রেনীর স্বার্থে যে রাষ্ট্রব্যবস্থা তার বিরুদ্ধে গণমানুষের স্বার্থে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে জীবন সমর্পন করেছিলেন। সে কারণে তাকে সীমাহীন নিপিড়ন নির্যাতন সইতে হয়েছে। আর গণমানুষের স্বাধীনতার জন্য ভোগ করতে হয়েছে ৪৬৭৫ দিন কারাভোগ। নিক্ষিপ্ত হয়েছেন ফাঁসির মঞ্চে। আবার গণমানুষের ভালোবাসার শক্তি গনমানুষের বুকের ধন বুকে ফিরিয়েও এনেছে ফাঁসির মঞ্চ থেকে। এই মহামানবের অভিযাত্রার মর্যাদা বিশ^ মানব ইতিহাসে অম্লান থাকবে চিরদিন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো এমন অবিস্মরণীয় গনমুক্তিকামী রাজনীতিবিদ আর কখনো জন্মগ্রহন করবে কিনা বলা না গেলেও এটা নিশ্চিত করে বলা যায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু একটি নাম নয় তিনি একাই একটি ইতিহাস, তিনি বাঙালি জাতির ইতিহাস নির্মাতা, বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্ট্রা। তিনি ঘুমন্ত ও নিরস্ত্র শোষিত-বঞ্চিত, নিপীড়িত ও নির্যাতিত বাঙালি জাতিকে, স্বাধীনতার মন্ত্রে জাগিয়ে তুলেছিলেন এবং সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে নিষ্ঠুর শোষন বঞ্চনার কালো অধ্যায় আর হাজার বছরের পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে ছিনিয়ে এনে আমাদের উপহার দিয়েছিলেন একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশ। যা আমাদের প্রিয় প্রাণের বাংলাদেশ। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, ইতিহাসের রাখাল রাজা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে রচিত হয়েছে এবং অবিরাম হচ্ছে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অজ¯্র গল্পগাথা। কোন মানুষকে নিয়ে এত বিপুল পরিমান শিল্প-সাহিত্য রচিত হয়েছে কিনা তা বলা দুরুহ। কিছু কাপুরুষ হন্তারকের হাতে ১৯৭৫ সালে এই মহান নেতাকে নিষ্ঠুরভাবে স্বপরিবারে হত্যার পর থেকে সেই বিয়োগান্তক বেদনার কাহিনী নিয়ে আজ পর্যন্ত হাজার হাজার গান, গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ-নিবন্ধ ও তাঁর ঐতিহাসিক জীবনচরিত রচিত হয়েছে; ভবিষ্যতে এমন আরো যে অনেক সাহিত্যকর্ম রচিত হবে তা নিশ্চিত করেই বলা যায়। বঙ্গবন্ধু নিহত হয়েছেন প্রায় ৪৪ বছর আগে। ফিনিক্স পাখিকে যেমন মেরেও নিশ্চিন্ন করা যায় না, তার প্রতিকণা রক্ত থেকে জন্ম নেয় এমন লক্ষ লক্ষ ফিনিক্স পাখি; তেমনি মহান মুজিবের রক্ত থেকে জন্ম নিয়েছে এমন আরো লক্ষ মুজিব, এই মুজিবেরাই এখন সেই মহান দেশপ্রেমিক মুজিবের উত্তরসূরী। পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ যতদিন বেঁচে থাকবে ঠিক ততদিনই বাঙালির হৃদয়ের উচ্চাসনের সর্বোচ্চ স্থান থেকে মুজিবের নাম কেউ মুছে ফেলতে পারবে না। আজ ৪৪ বছর পরে যে শহীদ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জীবিত শেখ মুজিবুর রহমানের চেয়েও বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠছেন ক্রমাগত। আজকের এই শোকের মাসের শক্তিকেই পুজি করে তারই সুযোগ্য কন্যা দেশরতœ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরো বেগবান করে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের মহা¯্রােতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আপামর বাঙালি জাতিকে কাজ করার আহ্বান জানাচ্ছি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের শপথ নিয়ে বলছি তার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে সকল ষড়যন্ত্র এবং পাচাটা দুর্নীতিবাজদের রুখে দাড়াতে হবে। সেই সাথে অসাম্প্রদায়িক মাদক মুক্ত এক সুন্দর সমাজ গড়ে তুলতে হবে। সেই সাথে জাতীয় শোক দিবস ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাৎ দিবসে জানাই গভীর শোক ও শ্রদ্ধাঞ্জলী। এর আগে ১৫ আগস্ট ও ২১ আগস্টের সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা, দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ূ কামনা করে দোয়া করা হয়।

error: Content is protected !!