সোমবার , আগস্ট ২৬, ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

রাজীবপুরে স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে হুমকির অভিযোগ আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে

সহিজল ইসলাম, রাজীবপুর, কুড়িগ্রাম
কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (টিএইচএ) ডা. দেলোয়ার হোসেনকে ডেকে নিয়ে লাঞ্ছিত
ও জীবন নাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
শনিবার (২৭ জুলাই) রাত ৮টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভবনের গেটে ওই ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে রবিবার (২৮ জুলাই) থানায় সাধারণ ডায়রী করেন এবং হাসপাতালে কর্মরত ডাক্তার নার্সদের নিরাপত্তার দাবি জানান। উপজেলা আ’লীগ সভাপতি এবং মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল হাই সরকার এবং উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান তারেক ওই ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে সাংবাদিকদের জানান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. দেলোয়ার হোসেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, শনিবার রাতে রাজীবপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আকবর হোসেন হিরো মুঠোফোনে হাসপাতালের সামনে ডেকে আনেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. দেলোয়ার হোসেনকে। গত কয়েক মাস আগে হাসপাতাল ভাংচুরের ঘটনায় থানায় দায়ের করা মামলা তুলে নিয়ে বিবাদীদের সাথে মিমাংশার প্রস্তাব দেন উপজেলা চেয়ারম্যান আকবর হোসেন হিরো। উপজেলা চেয়ারম্যানের সাথে উপস্থিত ছিলন উপজেলা আ’লীগ সভাপতি ও মুক্তিযাদ্ধা কমান্ডার আব্দুল হাই সরকার। এ সময় হাসপাতালে গরীব মানুষ চিকিৎসা সেবা পায় না এমন অভিযোগ তুললে স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সাথে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের বাগবিতন্ডা শুরু হয়। সেই সময় সেখানে উপস্থিত হন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের ভাতিজা উপজেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান তারেক সহ বেশ কয়েকজন। পরে তারা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে লাঞ্ছিত করে এবং প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। ডা. দেলোয়ার হোসেন আজ রবিবার সাংবাদিকদর কাছে অভিযোগ করে বলেন, আ’লীগ সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এবং তার ভাতিজা ছাত্রলীগ নেতাসহ বেশ কয়েকজন মিলে আমাকে উপজলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সামনে চরমভাব অপমান ও  লাঞ্ছিত করে। এক পর্যায় আমার ওপর চড়াও হলে হাসপাতালের স্টাফরা আমাকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যায়। উনারা আমার জীবন নাশর হুমকি দিয়েছে। আজকে (রবিবার) অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতাসহ বেশ কয়েকজন হাসপাতাল গেটে মহড়া দিয়েছে। এ অবস্থায় আমি ও আমার স্টাফরা আতংকের মধ্যে আছি। স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে জীবন নাশের হুমকি দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে আ’লীগ নেতা ও মুক্তিযাদ্ধা কমান্ডার আব্দুল হাই সরকার বলেন, তাকে (স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে) হুমকি দেয়া ও লাঞ্চিত করার মত কোন কিছুই হয়নি। শুনেছি মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযাগ তুলে আমার নামে থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছে সে। চিকিৎসা সেবা দেওয়ায় অনিয়মের কথা বলাতে সে মিথ্যা অভিযোগ করছে আমাদের বিরুদ্ধে । স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান তারেক বলেন, এরকম কোন ঘটনা ঘটেনি। দরিদ্র রোগীরা মাঝেমধ্যে আমাদের কাছে এসে বলে হাসপাতালে ডাক্তাররা চিকিৎসা ঠিকমত দেয় না, ঔষধ থাকলেও বাহির থেকে কিনতে হয়।এই বিষয়গুলো উনাকে বলতেই উনি ক্ষেপে যান এবং তর্ক শুরু করেন আমাদের সবার সাথে। পরে আমরা সেখান থেকে চলে আসি।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে রাজীবপুর উপজলা পরিষদ চেয়ারম্যান আকবর হোসেন হিরো বলেন, আ’লীগ সভাপতি ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তার মাঝে কথাকাটাকাটি ও উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছিল। আমি উভয় পক্ষকে শান্ত করে মিমাংশা করে দিয়েছি। রাজীবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রবিউল ইসলাম বলন, ডা. দেলোয়ার হোসেন আ’লীগ সভাপতিসহ চার জনের নাম উল্লেখ করে সাধারণ ডায়েরী করেছেন। আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখবো।
error: Content is protected !!