সোমবার , সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

বিশ্ব খরা ও মরুকরণ প্রতিরোধ দিবসে জামালপুর সনাক-টিআইবি’র উদ্যোগে মানববন্ধন


স্টাফ করসপনডেন্ট
“চলো এক সাথে আগামীর ভবিষ্যত গড়ি” এই স্লোগানকে সামনে রেখে জামালপুরে বিশ্ব খরা ও মরুকরণ প্রতিরোধ দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে সোমবার (১৭ জুন) সকালে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) জামালপুরের উদ্যোগে এক মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।


শহরের ফৌজদারী মোড়ে আয়োজিত ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন সনাক জামালপুরের সভাপতি অধ্যাপক মীর আনছার আলী। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সনাক সহ-সভাপতি অজয় কুমার পাল, সনাক সদস্য মনোয়ারা খানম, একেএম আশরাফুজ্জামান স্বাধীন, ইয়েস সহ-দলনেতা সিরাজুল ইসলাম রনি, মানবাধিকার কর্মী জাহাঙ্গীর সেলিম, বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার হাফিজুর রহমান বাদশা প্রমূখ।

এ সময় বক্তারা বলেন, পরিবেশ বিপর্যয় রোধ ও ব্রহ্মপুত্রসহ বিভিন্ন মৃতপ্রায় নদ-নদী রক্ষার জন্য প্রয়োজন সামাজিক আন্দোলন। একদিকে যেমন আমাদের জনসংখ্যা বাড়ছে, বাড়ছে খাদ্যের চাহিদা, একই সাথে তাদের বসতি ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি নিশ্চিতকরণে বাড়ছে জমির চাহিদাও। আমাদের পরিবেশ রক্ষায় ব্যাক্তিগতভাবে উদ্যোগ নিতে হবে। নদী দখল, নদী দূষণ, নদী থেকে বালু উত্তলনসহ সব রকম পরিবেশ বিরোধী কর্মকান্ড বন্ধে আরো জোরদার আন্দোলন করতে হবে। বক্তারা আরো বলেন, বাংলাদেশে খরা ও মরুকরণের উপস্থিতি না থাকলেও ক্রমবর্ধমান পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণে তা অদূর ভবিষ্যতে দৃশ্যমান হতে পারে। ফলে এ বিষয়ে এখনই পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন।

টেকশই উন্নয়ন নিশ্চিত করার জন্য জলবায়ু পরিবর্তন ও এর সাথে সংশ্লিষ্ট প্রভাবগুলো স্থানীয় পর্যায়ের চাহিদার মাধ্যমে বিবেচনা করা প্রয়োজন। এ সময় বিশ্ব খরা ও মরুকরণ প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষ্যে সনাক জামালপুর এর সুনির্দিষ্ট ৬ দফা দাবী তুলে ধরা হয়। দাবীগুলো হল-
১. টেকশই উন্নয়নের অভীষ্ট ১৫ এর উপধারা ৩ সহ এ সংক্রান্ত সমস্ত লক্ষমাত্রার সঠিক বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে এবং স্থানীয় পর্যায়ের চাহিদা অনুযায়ী কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।
২. অবিলম্বে ব্রহ্মপুত্র নদের পাড় ঘেষে বিভিন্ন দখলদারদের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে হবে।
৩. ড্রেজিং এর মাধ্যমে ব্রহ্মপুত্র নদের নাব্যতা পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে নিতে হবে।
৪. খরা ও মরুকরণ প্রতিরোধে সরকারীভাবে ব্যাপক আকারে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি হাতে নিতে হবে।
৫. পরিবেশ বিপর্যয় ও এর প্রতিরোধে সরকারীভাবে বৃহৎ পরিসরে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে এবং সেখানে সুশীল সমাজের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।
৬. পরিবেশ দূষনকারীদের প্রতিরোধে এ সংক্রান্ত আইনের কঠোর বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে এবং দৃষ্টান্ত স্থাপনের জন্য তা জনসম্মুখে উপস্থাপন করতে হবে।


মানববন্ধনে সনাক, স্বজন, ইয়েস ও ইয়েস ফ্রেন্ডস সদস্যবৃন্দ, এনজিও প্রতিনিধি, গণমাধ্যম ব্যক্তিবর্গসহ বিভিন্ন পেশার শতাধিক নাগরিক অংশগ্রহণ করেন।

error: Content is protected !!