বৃহস্পতিবার , এপ্রিল ২৫, ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

বাড়ছে রেলের ভাড়া, কোন টিকেটের ভাড়া কত ?

নিউজ ডেস্ক

আবারো বাড়ছে রেলের ভাড়া। এবার রেলওয়ে ২৫ শতাংশ ভাড়া বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে। আগামী জুন মাসের মধ্যে বর্ধিত ভাড়া কার্যকর করার প্রস্তুতি নিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। এর ফলে তিন বছরের মধ্যে দ্বিতীয়বার বাড়ছে ভাড়া।

এদিকে যাত্রীসেবা নিয়ে প্রতিনিয়তই বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ থাকায় আবারো রেলের ভাড়া বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। যাত্রীরা বলছেন, রেলের আন্তঃনগর শ্রেণির অনেক ট্রেনে বসার আসনের অবস্থা যাচ্ছেতাই।

এক যাত্রী অভিযোগ করে বলেন, প্রতিটি ট্রেনে খাবার গাড়ি থাকার কথা থাকলেও সিলেট রুটের কালনী এক্সপ্রেস কয়েক বছর থেকে ছয় থেকে সাতটি কোচে চলছে। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কোনো আসন নেই। খাবার গাড়িও যুক্ত থাকে না এই ট্রেনে। অথচ বর্ধিত ভাড়া অনুযায়ী এ ট্রেনে ৬১০ টাকার ভাড়া হবে এক হাজার টাকা।

জানা যায়, লালমনী এক্সপ্রেস ট্রেন প্রায়ই বিকল হয়ে যায়। বেশির ভাগ সময়ই ট্রেন বিলম্ব যাওয়া-আসা করে। শিডিউল ঠিক থাকে না ঈদসহ গুরুত্বপূর্ণ দিনগুলোতে। এ অবস্থায় রেলের সেবা না বাড়িয়ে প্রায়ই ভাড়া বাড়ানোর সমলোচনা করেছে গণপরিবহন বিশেষজ্ঞ ও যাত্রী অধিকার নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন সংগঠন।

রেল মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ভাড়া গড়ে ২৫ শতাংশ বৃদ্ধির সুপারিশ করা হয়েছে। ফলে রেলের কিলোমিটার প্রতি ভিত্তিভাড়া ৩৯ পয়সা থেকে বেড়ে হবে ৪৯ পয়সা। রুটভেদে শোভন চেয়ারে ভাড়া বাড়ছে ২২ থেকে ৪৭ শতাংশ, আর এসি চেয়ারে রুটভেদে ভাড়া ৩৯ থেকে ৬৪ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ছে।

প্রসঙ্গত, প্রায় ২০ বছর পর ২০১২ সালে রেলের ভাড়া বাড়ানো হয়। ওই সময়ে রেলের যাত্রী পরিবহনের কিলোমিটারপ্রতি ভিত্তিভাড়া ২৪ থেকে বাড়িয়ে ৩৬ পয়সা করা হয়। ৫০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানো হলেও বিভিন্ন রুটে থাকা ডিসকাউন্ট তুলে দেয়ায় ভাড়া বেড়েছিল প্রায় শতভাগ। এরপর ২০১৬ সালে ভাড়া বাড়ানো হয়। ওই সময় কিলোমিটারপ্রতি ভিত্তিভাড়া ৩৬ পয়সা থেকে ৩৯ পয়সা করা হয়।

নতুন প্রস্তাব অনুযায়ী, ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের শোভন চেয়ারের বর্তমান ভাড়া ৩৪৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪৬৫ টাকা করা হবে। এসি চেয়ার কোচের ভাড়া ৬৫৬ টাকা থেকে বাড়িয়ে করা হবে এক হাজার ৭০ টাকা। ঢাকা-খুলনা রুটে শোভন চেয়ারের ভাড়া ৫০৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৬৩০ টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে।

এছাড়া এসি চেয়ারের ভাড়া ৯৬৬ টাকা থেকে বাড়িয়ে এক হাজার ৪৪৩ টাকা করা হবে। ঢাকা-সিলেট রুটের ক্ষেত্রে শোভন চেয়ারের ভাড়া ৩২০ টাকা থেকে ৪৩৫ টাকা এবং এসি চেয়ারে ৬১০ টাকা থেকে বেড়ে এক হাজার এক টাকা করা হবে। মালবাহী ট্রেনের ভাড়াও প্রস্তাব অনুযায়ী ২৫ ভাগেরও বেশি করা হবে।

জানতে চাইলে রেল মন্ত্রণালয়ের সচিব মোফাজ্জল হোসেন বলেন, ভাড়া বাড়ানোর প্রস্তাব প্রস্তুত করা হয়েছে। এখন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হবে। তার আগেই বিভিন্ন ধাপ সম্পন্ন করতে হবে। আগামী জুনের মধ্যে এ ভাড়া কার্যকর করা হতে পারে।

সূত্রঃ ডেইলি বাংলাদেশ

error: Content is protected !!