রবিবার , ডিসেম্বর ৮, ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

ইসলামপুরে যমুনার বাম তীর সংরক্ষণ প্রকল্পে ধ্বস এলাকায় আতংক


লিয়াকত হোসাইন লায়ন, স্টাফ করসপনডেন্ট, ইসলামপুর
উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে জামালপুরের ইসলামপুরে যমুনা নদীতে হুহু করে পানি বাড়ছে। সোমবার যমুনার বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে পানি বিপদসীমা অতিক্রম করে ১২ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদ সীমার ৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ইতিমধ্যে বন্যার পানিতে নিম্নাঞ্চল ডুবে যাচ্ছে।


অন্যদিকে, পানির তীব্র স্রোতে যমুনার বামতীর সংরক্ষণ প্রকল্পের উপজেলার নোয়ারপাড়া ইউনিয়নের উলিয়াঘাট এলাকায় বাঁধের সিসি ব্লক বন্যার পানির স্রোতের দেবে যাচ্ছে। জানাগেছে, পানি উন্নয়ন বোর্ড দেওয়ানগঞ্জে ফুটানী বাজার থেকে ইসলামপুর হয়ে সরিষাবাড়ির পিংনা পর্যন্ত ৪৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্পটির কাজ সম্পন্ন করেছে। যমুনার বামতীর সংরক্ষণ প্রকল্পে ৪৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে সদ্য নির্মিত সংরক্ষণ প্রকল্পটির কাজ নিয়ম বর্হিভূত করায় পানি বৃদ্ধি ও তীব্র স্রোতে যমুনা নদীর উলিয়া বাজার অংশে ধ্বসে যাচ্ছে। এতে করে পূনরায় এলাকাবাসীর মাঝে আতংক দেখা দিয়েছে।


সোমবার দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সদ্য নির্মিত প্রকল্পটির বাঁধের কিছু অংশে সিসি ব্লক বন্যার পানির স্রোতের ধাক্কায় যমুনার গর্ভে চলে যাচ্ছে। এলাকাবাসী ক্ষুদ্ধ কণ্ঠে জানান, কাজ নিম্ন মানের হওয়ায় সামান্য পানির স্রোতের ধাক্কায় এ প্রকল্পে ধ্বস নেমেছে। আবার কেউ কেউ বলছেন, অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করায় এটি ভেঙ্গে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে ঠিকাদরি প্রতিষ্ঠান পারিশা ট্রেড সিষ্টেম লিমিটেডের মালিক মশিউর রহমানের মুঠোফোনে একাধিক বার যোগাযোগের চেষ্ঠা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। এ সময় তার ফোন বন্ধ ছিল।


এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিজানুর রহমান জানান, কয়েক বার অভিযান চালিয়ে বালু উত্তোলন বন্ধ করেছিলাম। তবে রাতের আধারে বালু খেকোরা যমুনা থেকে বালু উত্তোলন করায় তাদের দমন করা সম্ভব হয়নি। তবে ভাঙ্গন রোধে জিও ব্যাগ ফেলার দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।
পানি উন্নয়নের বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী নব কুমার জানান, এটা কোন সমস্যা হবে না। আশা করি, বালির জিও ব্যাগ ফেলার প্রস্তুতি চলছে। ভাঙ্গন ঠেকানো সম্ভব হবে।

error: Content is protected !!