শুক্রবার , ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদ

ইসলামপুরের গুঠাইলে অবৈধভাবে বালু বিক্রি চলছেই

লিয়াকত হোসাইন লায়ন, স্টাফ করসপনডেন্ট, ইসলামপুর
জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলায় বালু বিক্রি বন্ধ থাকলেও দীর্ঘদিন ধরে গুঠাইলে অবৈধভাবে চলছেই বালুর ব্যবসা।
জানাগেছে, চিনাডুলী ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য শাহজাহান কবীর নিদেনু এবং মোস্তফাসহ একটি চক্র যমুনার বিভিন্ন চর থেকে অবৈধভাবে খনিজ বালু সম্পদ শ্যালো ইঞ্জিন চালিত নৌকা দিয়ে উত্তোলন করে গুঠাইলে ৪টি পয়েন্টে জমা করে দীর্ঘদিন ধরে লাখ লাখ টাকার বালু বিক্রি করে আসছে। যমুনা থেকে সরকারি অনুমতি ছাড়াই খনিজ সম্পদ লুটপাট করে বিক্রি করলেও যেন দেখার কেউ নেই।

সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, গুঠাইল বাজার সংলগ মেইন সড়কের পার্শে ৪টি স্পটে বালুর স্তুপ করে রেখে প্রতিনিয়ত বিক্রি করা হচ্ছে। প্রতিদিন ভটভটি, মাহিন্দ্র ট্রাক বালু নিতে সড়কে ভিড় জমাচ্ছে। যমুনা নদীর বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে শ্যালো ইঞ্জিন চালিত ড্রেজার নৌকা, বুলগেট মেশিনে করে বালু এনে যমুনার গুঠাইল হার্ড পয়েন্ট ও গুঠাইল বাজারের পাশে জমা করে বিক্রি করে আসছে। রাস্তায় চলাচলকারি মানুষদের অভিযোগ, গুঠাইল বাজারে ঢোকার পথে রাস্তায় পাইপ বসিয়ে উঁচু বিট দিয়ে চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে বালু দস্যুরা দীর্ঘ দিন ধরে যমুনা থেকে বালু উত্তোলন করছে। শাহজাহান কবীর নিদেনু ও মোস্তফার সাথে কথা বললে তারা জানান প্রশাসন থেকে শুরু করে সবমহল মিলকরে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করছি। এলাকাবাসী ও সচেতন মহলের অভিযোগ কি কারণে অবৈধ বালু উত্তোলন ও অবৈধ ব্যবসা বন্ধ হচ্ছে না তা আমরা বুঝতে পারছিনা। তবে তারা জরুরী ভিত্তিতে অবৈধ বালু উত্তোলন ও বালু উত্তোলনকারীদের বিরদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী জানান। জামালপুর জেলা পরিষদের সদস্য গুঠাইল এলাকার বাসিন্দা ওয়ারেছ আলী সাথে কথা বললে তিনি জানান, বালু উত্তোলন ও বিক্রয়কারীদের বারবার বাধা দেওয়ার পরও তারা আমার কথা মানছেনা। ইসলামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মিজানুর রহমান জানান, অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও বিক্রয়কারীদের বিরুদ্ধে খুব শীঘ্রই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

error: Content is protected !!